FANDOM


Indigo-factory Bengal4.jpg

নীল কারখানা

নীল বিদ্রোহ মূলত কৃষক আন্দোলন যা, নীল চাষিরা শুরু করে এবং ১৮৫৯ সালে সমগ্র বাংলায় ছড়িয়ে পরে। বিদ্রোহ পিছনে কাজ করে অর্ধ শতাব্দী পূর্বে নীল চাষ আইন প্রণয়ন। [১] ফেব্রুয়ারী – মার্চ , ১৮৫৯ সালে নীলচাষীরা নীল গাছের একটি চারা বপন করতে অস্বীকৃতি জানায়। অর্ধ শতাব্দী ধরে নৃশংসতার শিকার জনগোষ্ঠীর কাছে কৃষকদের দাবি নাটকীয়ভাবে শক্তিশালী রুপ ধারন করে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল এই বিদ্রোহ বাংলার প্রধান ধর্মীয় গোষ্ঠীদের সমর্থন লাভে করে, বিশেষত চাঁদপুরের হাজি মোল্লা, যিনি ঘোষণা দেন নীলচাষ থেকে ভিক্ষা উত্তম[২] কৃষকদের এই আন্দোলন সম্পূর্ণই একটি অহিংস প্রতিরোধ ছিল।

বিদ্রোহ কারণসমূহEdit

১৭৭৭ সালে বাংলায় প্রথম নীল চাষ শুরু হয় এবং লুইস বোনার্ডকে প্রথম নীলকর মনে করা হয়। উনিশ শতকের প্রথম ভাগে ইংল্যান্ডে শিল্প বিপ্লবের ফলে সেখানকার বস্ত্র-শিল্পে নীলের চাহিদা ব্যাপকভাবে বেড়ে গিয়েছি। বাংলায় ব্রিটিশ ক্ষমটা সম্প্রসারণের সাথে সাথে নীল চাষের এলাকা বর্ধমান, বাঁকুড়া, বীরভূম, মুর্শিদাবাদ এলাকায় বিস্তৃত করে। নীলকররা কৃষকদের উৎকৃষ্ট জমিতে নীল বুনতে বাধ্য করত। নীল ছাড়া অন্য কোনো শস্য উৎপাদন করতে দিত না। দাদনের টাকা নেওয়ার সময় শর্তসাপেক্ষে চুক্তিপত্রে টিপ সই দিতে হতো আর চুক্তি অনুযায়ী কাজ না করলে চাষির ওপর চালানো হতো অকথ্য অত্যাচার। ১৮৩০ খ্রিস্টাব্দে সরকার এক আইন জারি করেছিল যাতে নীলকররা আরও শক্তিশালী ও আরও বেপরোয়া হয়ে ওঠে। নীল চাষ করতে না চাইলে কৃষকদের ওপর বিভিন্নভাবে নির্যাতন চালানো হতো। যেসব কৃষক অত্যাচারের ভয়ে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যেতেন, তাদের ভিটেমাটিতে নীল চাষ করা হত। কারও কারও গৃহ-বাড়ি আগুনে পুড়িয়ে দেওয়া হত। প্রতিটি নীলকুঠিতে ছিল কয়েদখানা। অত্যাচারের মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় নীল চাষের বিরুদ্ধে চাষীরা ঐক্যবদ্ধ হতে শুরু করে এবং চারদিকে দেখা দিয়েছিল বিদ্রোহের সুত্রপাত ঘটে।[৩] মধ্যবিত্ত সমাজ কৃষকদের আকুন্ঠ সমর্থন দিয়েছিল। হরিশ্চন্দ্র মুখোপাধ্যায়, তার সংবাদপত্র দি হিন্দু প্যাট্রিয়ট-এ গরীব কৃষকদের দুর্দশার কথা তুলে ধরেন। এরপর, দীনবন্ধু মিত্র নিবন্ধ পাঠ করেন এবং নীল দর্পণ নাটকের মাধ্যমে পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে তুলে ধরেন। নাটকটি ব্যাপক বিতর্কের সৃষ্টি করে।

বিদ্রোহEdit

তৎকালীন নদীয়া, বর্তমানে বাংলাদেশের যশোর জেলায় চৌগাছায় সর্বপ্রথম বিদ্রোহ দেখা দেয় বিষ্ণুচরণ বিশ্বাস ও দিগম্ভর বিশ্বাসের নেতৃত্বে। [৩] বিদ্রোহ দ্রুত বর্ধমান, বাঁকুড়া, বীরভূম মুর্শিদাবাদ পাবনাখুলনায় ছড়িয়ে পড়ে। কিছু নীলকরের বিচার করা হয় এবং ফাঁসি দেয়া হয়। কৃষকরা বহু নীলকুঠি ভেঙে মাটির সঙ্গে মিশিয়ে দেয়। নীলকরদের মাল বহনের যোগাযোগের রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়। সশস্ত্র কৃষকরা সরকারি অফিস, স্থানীয় ম্যাজিস্ট্রেটের কাছারি প্রভৃতির ওপর আক্রমণ চালায়। এই বিদ্রোহে হিন্দু-মুসলমান কৃষকরা ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে ঐক্যবদ্ধভাবে যোগ দিয়েছিল। নীল বিদ্রোহ কঠোরভাবে দমন করা হয়। ব্রিটিশ সরকারের ও কিছু জমিদারের সমর্থন নিয়ে পুলিশ এবং সামরিক বাহিনীর দিয়ে কিছু কৃষকের উপর অত্যাচার করা হয়। যদিও এই বিদ্রোহ ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায়, যাতে প্রায় পুরা বাংলা জড়িয়ে পড়ে। নদীয়ার বিশ্বাস ভাতৃদ্বয়, পাবনার কাদের মোল্লা, মালদার রফিক মণ্ডল জনপ্রিয় নেতা ছিলেন।

ভারতে ব্রিটিশ শাসকদের উপর প্রভাব Edit

ঐতিহাসিক যোগেশচন্দ্র বাগলএর বর্ণনা মতে কৃষকদের নীল বিদ্রোহের অহিংস আন্দোলন, সিপাহী বিদ্রোহের চেয়ে বেশী সফল হয়। বিদ্রোহের ঘটনার খবর ইংল্যান্ডে পৌঁছে যায়। এবং এটি নিয়ে পার্লামেন্টে প্রকাশিত হওয়ার দরুন চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়। ব্রিরিশ পার্লামেন্ট কৃষকদের দুরবস্থার বিষয় নিয়ে ইংরেজ শাসকদের কাছে কৈফিয়ত তলব করে এবং বিদ্রোহ ও অসন্তোষের কারণ অনুসন্ধানে একটি কমিটি গঠন করে। কমিটি সবকিছু তদন্ত করে নীল গাছের দাম বাড়িয়ে দেয় আর এতে লাভের পরিমান কমে গেলে নীলকররা কারখানাগুলো বিক্রয় করতে বাধ্য হয়। ১৮৯৫ খ্রিস্টাব্দে নীলের উৎপাদন কমে যাওয়ায় নীলকররা এই বাবস্যা বন্ধ করে দেয়। [৩]

সাংস্কৃতিক প্রভাবEdit

দীনবন্ধু মিত্র ১৮৫৯ সালে নীল বিদ্রোহ নিয়ে নীল দর্পণ নাটক রচনা করেন। মাইকেল মধুসূদন দত্ত এটি ইংরেজি ভাষায় অনুবাদ করেন এবং এটি প্রকাশ করেন রেভারেন্ড জেমস লং। এটা ইংল্যান্ডে অনেক মনোযোগ আকৃষ্ট করে, যেখানে তাদের দেশের মানুষের বর্বরতার তারা স্তব্ধ হয়ে যায়। ব্রিটিশ সরকার পরিহাসের বিচারের মাধ্যমে রেভারেন্ড লং- কে কারাদন্ড ও জরিমানার শাস্তি দেয়া হয়। কালীপ্রসন্ন সিংহ তার জরিমানার টাকা পরিশোধ করেন।

তথ্যসূত্রEdit

  1. Nildarpan (play by Mitra) - Britannica Online Encyclopedia
  2. Social Scientist. v 5, no. 60 (July 1977) p. 14.
  3. ৩.০ ৩.১ ৩.২ "নীল বিদ্রোহ"। সমকাল। ৩১ মে ২০১২। সংগৃহীত ২ জুলাই, ২০১৪ 

আরও দেখুনEdit

Ad blocker interference detected!


Wikia is a free-to-use site that makes money from advertising. We have a modified experience for viewers using ad blockers

Wikia is not accessible if you’ve made further modifications. Remove the custom ad blocker rule(s) and the page will load as expected.

Also on FANDOM

Random Wiki