FANDOM


টেমপ্লেট:Infobox of BD districts

রাঙ্গামাটি জেলা বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের চট্টগ্রাম বিভাগের একটি প্রশাসনিক অঞ্চল। বেতবুনিয়া ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্র এখানে অবস্থিত।

নৈসর্গিক সৌন্দর্য্যের লীলাভূমি রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা ২২০- ২৭ ও ২৩০- ৪৪ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৯১০- ৫৬ ও ৯২০- ৩৩ পূর্ব দ্রাঘিমাংশের মধ্যে অবস্থিত। রাঙ্গামাটির উত্তরে ভারতের ত্রিপুরা, মিজোরাম, দক্ষিণে বান্দরবান, পূর্বে মিজোরাম ও পশ্চিমে চট্রগ্রাম ও খাগড়াছড়ি। এ জেলা আয়তনের দিক থেকে দেশের সর্ববৃহৎ জেলা। দেশের এক মাত্র রিক্সা বিহীন শহর, হ্রদ পরিবেষ্টিত পর্যটন শহর এলাকা। এ জেলায় চাকমা, মারমা, তঞ্চঙ্গ্যা, ত্রিপুরা, মুরং, বোম, খুমি, খেয়াং, চাক্, পাংখোয়া, লুসাই, সুজেসাওতাল, রাখাইন সর্বোপরি বাঙ্গালীসহ ১৪টি জনগোষ্ঠি বসবাস করে।

রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান- এই তিন পার্বত্য অঞ্চলকে নিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম জেলা সৃষ্টির পূর্বের নাম ছিল কার্পাস মহল। পার্বত্য চট্টগ্রাম জেলা থেকে১৯৮১ সালে বান্দরবান এবং ১৯৮৩ সালে খাগড়াছড়ি পৃথক জেলা সৃষ্টি করা হলে পার্বত্য চট্টগ্রাম জেলার মূল অংশ রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা হিসাবে আত্মপ্রকাশ করে। প্রথাগত রাজস্ব আদায় ব্যবস্থায় রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলায় রয়েছে চাক্মা সার্কেল চীফ। চাক্‌মা রাজা হলেন নিয়মতান্ত্রিক চাক্‌মা সার্কেল চীফ।

ভৌগোলিক সীমানা Edit

রাঙ্গামাটির মোট আয়তন ৬১১৬.৩ বর্গ কি.মি। এ জেলা উত্তরে ভারতের ত্রিপুরা, দক্ষিণে বান্দরবান জেলা পূর্বে ভারতের মিজোরাম প্রদেশ এবং মায়ানমারের চীন প্রদেশ ও পশ্চিমে খাগড়াছড়ি এবং চট্টগ্রাম জেলা দ্বারা পরিবেষ্ঠিত।

প্রধান নদী Edit

কর্ণফুলী, থেগা, হরিনা, কাসালং, শুভলং, চিঙ্গড়ি, কাপ্তাই।

এ জেলার প্রধান নদী কর্ণফুলী। এ নদী ভারতের লুসাই পাহাড় থেকে উৎপন্ন হয়ে রাঙ্গামাটি উত্তর-পূর্ব সীমান্ত দিয়ে ঠেগা নদীর মোহনা হয়ে এ অঞ্চলে প্রবেশ করেছে। কর্ণফুলীর উপনদীগুলো হলো- কাচালং, চেঙ্গী, ঠেগা, বড়হরিণা, সলক, রাইনখ্যং ও কাপ্তাই।এ উপনদীগুলো বষাকালে যথেষ্ট খরস্রোতা থাকলেও শুষ্ক মৌসুমে নাব্যতাসহ পানির পরিমান প্রায় থাকেনা।

প্রশাসনিক এলাকাসমূহ Edit

রাঙ্গামাটি পৌরসভা ৯ টি ওয়ার্ড ও ৩৫ টি মহল্লা নিয়ে গঠিত। শহরের মোট আয়তন ৬৪.৭৫ বর্গ কি.মি। ১৯৮৩ সালে রাঙ্গামাটি একটি পূর্ণাঙ্গ জেলা হিসেবে ঘোষিত হয়। এ জেলায় ১০ টি উপজেলা, ৫০ টি ইউনিয়ন পরিষদ, ১৬২ টি মৌযা ও ১৩৪৭ টি গ্রাম আছে। রাঙামাটি জেলার ১০টি উপজেলা হলো:

ইতিহাস Edit

মুসলিম বিজয়ের পূর্বে রাঙামাটি ত্রিপুরা ও আরাকানের রাজাদের যুদ্ধক্ষেত্র ছিল। ১৬৬৬ সালে এই অঞ্চল মুঘলদের দখলে আসে। ১৭৬০-৬১ সালে এটি ইংরেজ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির কাছে ইজারা দেওয়া হয়। ১৭৩৭ সালে শের মোস্তা খান নামক একজন গোত্র প্রধান মুঘলদের নিকট এখানে আশ্রয় পান। সেই থেকে চাকমারা ও পরবর্তিতে অন্য আদিবাসীরা এই অঞ্চলে বসতি স্থাপন করে। অন্য আদিবাসীদের ভিতর বোম, চাক, খুমি, খেয়াং, লুসাই, মো, মুরাং, পাঙ্কু, সান্তাল, মনিপুরিরা প্রধান।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান Edit

দুটি সরকারি কলেজ, ১৪ টি বেসরকারি কলেজ, ৬ টি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, ৪৫ টি বেসরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, ২৯১ টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১২০ টি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৬১ টি মাদ্রাসা ও ৭ টি কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

অর্থনীতি Edit

প্রধান শস্যঃ ধান, পাট, আলু, তুলা, ভুট্টা, সরিষা।

প্রধান ফলঃ আম। কাঁঠাল, কলা, আনারস, লিচু, কালজাম।

শিল্প কারখানাঃ চন্দ্রঘোনা কাগজের কল, রেয়ন কল, প্লাইউড কারখানা, জল-বিদ্যুৎ প্রকল্প, ঘাগড়া বস্ত্র কারখানা।

কুটির শিল্পঃ তাঁত, কামার, কাঠের কাজ, স্বর্ণকার, ঢালাই ইত্যাদি।

প্রধান রপ্তানিঃ কাঁঠাল, আনারস, বনজ পন্য, কাঠ।

চিত্র:কাপ্তাই লেক,প্যাডা টিং টিং-38.JPG
চিত্র:কাপ্তাই লেক,রাঙ্গামাটি-44.JPG
চিত্র:কাপ্তাই লেক,রাঙ্গামাটি-51.JPG

চিত্তাকর্ষক স্থান Edit

  1. কাপ্তাই হ্রদ,
  2. রাজা জং বসাক খানের দীঘি ও মসজিদ,
  3. রাজা হরিশ চন্দ্র রায়ের আবাসস্থলের ধবংসাবশেষ, #
  4. ঝুলন্ত সেতু,
  5. বুদ্ধদের প্যাগোডা,
  6. রাজবন বিহার,
  7. শুভলং ঝর্ণা
  8. সাজেক

স্বাস্থ্য কেন্দ্র Edit

১০ টি উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্র, ২৮ টি ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্র, ৪৮ পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্র।

গ্যালারি Edit

তথ্যসুত্রEdit

আনুষঙ্গিক নিবন্ধ Edit

বহিঃসংযোগ Edit

টেমপ্লেট:বাংলাদেশের প্রশাসনিক অঞ্চল

এই নিবন্ধটি অসম্পূর্ণ।দয়াকরে সম্প্রাসরণ করে বাংলা বিশ্বকোষকে সাহায্য করুন।

Ad blocker interference detected!


Wikia is a free-to-use site that makes money from advertising. We have a modified experience for viewers using ad blockers

Wikia is not accessible if you’ve made further modifications. Remove the custom ad blocker rule(s) and the page will load as expected.

Also on FANDOM

Random Wiki